আজ , মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২

রাউজানে নদীর তীরে পৌর কাউন্সিলর আলমগীর আলীর মিশ্র ফলের বাগান

লেখক : সাহেদুর রহমান মোরশেদ | প্রকাশ: ২০২২-০৪-১৭ ০০:২৫:৫১

শফিউল আলম, রাউজানবার্তাঃ

রাউজান পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডের পশ্চিম গহিরা মঘাশাস্ত্রি বড়ুয়া পাড়ার পাশে হালদা নদীর তীরে বিপুল পরিমান আয়তনের জমিতে রাউজান পৌরসভার কাউন্সিলর আলমগীর আলী মিশ্র ফলের বাগান গড়ে তোলেছেন।

মিশ্র ফলের বাগানে বিভিন্ন প্রজাতির আম, উচ্ছ ফলনশীল পেপেঁ, বিভিন্ন প্রজাতির লেবু, জাম্বুরা, জলপাই, গোলাপ জাম, হরিতকি, আমলকি, পেয়ারা, থাই পেয়ারা, কমলা, চেরিফল, কাঠাল, আতাঁ গাছের বাগান করেছেন। পৌর কাউন্সিনলর আলমগীর আলী মিশ্র ফলের বাগানে আম গাছের মধ্যে ফলন এসেছে।

বাগানের পেপে গাছে পেপেঁ ধরছে প্রচুর, কাঠাল গাছে কাঠালের ফলন এসেছে। মিশ্র ফলের বাগানের মধ্যে বিপুল পরিমান জমিতে বেগুন, মরিচ, লাউ, মিষ্টি কুমড়া, বরবটি, ঢেড়শ, টমটো, গ্রীস্মকালীন শাক সব্জির ক্ষেতের চাষাবাদ করা হয়েছে।

মিশ্র ফলের বাগানে বিশাল আয়তনের ৬টি পুকুরে গড়ে তোলা হয়েছে মাছ চাষ। ৬টি পুকুরের মাছ চাষ থেকে রুই, কাতলা, মৃগেল, সহ নানা প্রজাতির মাছ উৎপাদন করা হয়।

রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক রাউজান পৌরসভার কাউন্সিলর আলমগীর আলীর গড়ে তোলা মিশ্র ফলের বাগান, মৎস চাষ প্রকল্পে, ডেইরী ফার্মে ৫জন কর্মচারী প্রতিনিয়ত কাজ করে তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে জিবিকা নির্বাহ করছেন। রাউজান পৌরসভার কাউন্সিলর আলমগীর আলী বলেন মিশ্র ফলের বাগান, মাছ চাষ, ডেইরী র্ফাম করার পর বাগানের ফল গাছে ফলন এসেছে পুকুরের মাছ চাষ থেকে মাছ উৎপাদন করে যে টাকা খরচ হয়েছে ঐ টাকা থেকে কিছু পরিমান টাকা আয় করা হলে ও করোনার প্রাদুর্ভাব চলাকালে ডেইরী ফার্মের গরু বিক্রয় করে গরু বিক্রয়ের টাকা দিয়ে বাগোনের খরচ বহন করতে হয়। করোনার প্রাদুভাব চলাকালে সরকার ডেইরী ফামের মালিক, ফলজ বাগানের মালিক, মৎস প্রকল্পের মালিকদের করোনার প্রণোদনা দিলেও পৌর কাউন্সিলর আলমগীর আলী সরকারী কোন সহায়তা পায়নি বলে জানান পৌর কাউন্সিলর আলমগীর আলী।

আলমগীর আলী আরো বলেন, মিশ্র ফলের বাগান বাগান করতে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর থেকে কোন সময়ে কোন প্রকার সহায়তা পায়নি।

এ ব্যাপারে রাউজান উপজেলা কৃষি অফিসার ইমরান হোসাইন বলেন, পৌর কাউন্সিলর আলমগীর আলীর মিশ্র ফলের বাগানে কৃষি বিভাগ থেকে কোন সহায়তা করা হয়েছে কিনা তা আমি জানিনা। আমি রাউজান উপজেলা কৃষি অফিসারের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে কোন সহায়তা করা হয়নি। সরকারের পক্ষ থেকে কোন সহায়তাা আসলে পৌর কাউন্সিলর আলমগীর আলীর শিশ্র ফলের বাগানে সহায়তা করার চেষ্টা করবো।